সাধারণ

তীব্রতার সংজ্ঞা

তীব্রতা শব্দটিকে একটি প্রাকৃতিক বস্তু বা যান্ত্রিক ডিভাইসে প্রয়োগ করা শক্তির ডিগ্রি বা স্তর হিসাবে সংজ্ঞায়িত করা যেতে পারে। যেহেতু তীব্রতার ধারণাটি অনেক বৈজ্ঞানিক শাখায় বিদ্যমান, তাই মনোবিজ্ঞানের ক্ষেত্রে এটি অন্যান্য উপাদান যেমন বিমূর্ত গাণিতিক উপাদানের পাশাপাশি একজন ব্যক্তির চরিত্র বা মেজাজের ক্ষেত্রেও প্রয়োগ করা যেতে পারে। তীব্রতা সর্বদা বস্তুর নিজেই একটি গুণ এবং এটি এমন কিছু যা নির্দিষ্ট মুহুর্ত, স্থান বা পরিস্থিতিতে এটিকে বর্ণনা এবং সংজ্ঞায়িত করতে ব্যবহৃত হয়।

যদি আমরা বুঝতে চাই যে তীব্রতা কী বা এটি একটি ভৌত-গাণিতিক দৃষ্টিকোণ থেকে বস্তুর উপর কীভাবে কাজ করে, তাহলে আমাদের অবশ্যই এটি স্পষ্ট করতে হবে যে তীব্রতা হল সেই সমীকরণের ফলাফল যা শক্তির ঘনত্ব (বা একক প্রতি শক্তি) গতির দ্বারা গুণ করে। যেমন শক্তি চলে। তাহলে এটা স্পষ্ট যে, তীব্রতার ধারণাটি সর্বদা একটি স্থান থেকে অন্য স্থানের গতিবিধি অনুমান করে, আন্দোলন যা শক্তি দ্বারা উত্পন্ন হয়। এই সহজ সমীকরণটি বিশেষত শব্দের তীব্রতা, আলো বা প্রকৃতির অন্যান্য উপাদান যেমন জল, বায়ু ইত্যাদির মতো ঘটনা বোঝার জন্য ব্যবহৃত হয়।

তীব্রতা শব্দটি সাধারণত নির্দিষ্ট ধরণের মানুষের ব্যক্তিত্ব বা মেজাজ বর্ণনা করতে ব্যবহৃত হয়। এই অর্থে তীব্রতা কখনই একটি সমীকরণে হ্রাসযোগ্য নয়, তবে এটি এমন একটি প্রক্রিয়া যা কিছু জৈবিক-রাসায়নিক উপাদানকে মানসিক উপাদানের সাথে একত্রিত করে। উপাদানগুলির এই সংমিশ্রণটি প্রতিটি ব্যক্তির জন্য বিশেষ এবং সাধারণত বিভিন্ন ধরণের অক্ষর তৈরি করে যা আচরণে প্রদর্শিত তীব্রতার স্তরে পরিবর্তিত হতে পারে। নির্দিষ্ট সংবেদন, অনুভূতি বা আবেগ ধারণ, দমন বা নিরপেক্ষ করার অক্ষমতার মধ্যে একটি ব্যক্তিত্বের তীব্রতা দৃশ্যমান করা যেতে পারে। এই অর্থে, একজন তীব্র ব্যক্তি হল সেই ব্যক্তি যিনি যুক্তি বা যুক্তির আদেশের অধীনে না হয়ে তাদের আবেগের (কান্না, আবেগ, রাগ, রাগ) আদেশের অধীনে কাজ করেন।