সামাজিক

বিচ্ছুরণের সংজ্ঞা

বিশেষ্য বিচ্ছুরণ সেই প্রভাবকে বোঝায় যা ঘটে যখন বিভিন্ন উপাদান তাদের উত্স বা তাদের নিউক্লিয়াস থেকে পৃথক হয় এবং স্থান বা সময়ে প্রসারিত হয়। এর বিপরীত শব্দ যা এটিকে সবচেয়ে ভালোভাবে সংজ্ঞায়িত করে তা হতে পারে ঘনত্ব, যা একক স্থানে বা সময়ে জমা হয়।

মানুষের সাথে সম্পর্কের ক্ষেত্রে

মানব প্রেক্ষাপটে বিচ্ছুরণের ধারণার তিনটি ভিন্ন অর্থ রয়েছে। প্রথমত, এটি জনসংখ্যার বিচ্ছুরণকে বোঝায়, একটি ঘটনা যা ঘটে যখন লোকেরা একে অপরের থেকে অনেক দূরে এবং একটি একক সম্প্রদায়ের মধ্যে নয় এমন বিশাল ভূমিতে বাস করে।

কখনও কখনও বিচ্ছুরণ বলতে কিছু কারণে একটি অঞ্চল পরিত্যাগ করার কথা বলা হয় (ইহুদি জনগণের ডায়াস্পোরা এই বিষয়ে একটি স্পষ্ট উদাহরণ)।

অবশেষে, বিচ্ছুরণকে একটি ব্যক্তিগত মনোভাব বা সত্তার উপায় হিসাবে বলা হয় এবং এই অর্থে, যখন কেউ তারা যা করছে তার উপর ফোকাস না করে, তখন তাকে বিচ্ছুরিত ব্যক্তি বলা হয়। এই উপায়টি লক্ষণীয় হতে পারে এবং এটি মনোযোগ ঘাটতি সিন্ড্রোম বা ADHD এর সাথে ঘটে এবং ওষুধের মাধ্যমে বা কিছু মানসিক চিকিত্সার সাথে মিলিত হয়ে চিকিত্সা করা যেতে পারে।

যাই হোক না কেন, বিক্ষিপ্ত আচরণের লোকেরা তাদের ক্রিয়া সম্পাদন করতে বা তাদের ব্যক্তিগত প্রকল্প শুরু করার সময় সমস্যায় পড়তে পারে।

কিছু নির্দিষ্ট ক্ষেত্রে, কেউ সেনাবাহিনীর সৈন্যদের ছত্রভঙ্গ বা বিক্ষোভকারীদের ছত্রভঙ্গ করার কথা বলতে পারে।

ধারণার অন্যান্য ব্যবহার

গণিতের ক্ষেত্রেও এই শব্দটি ব্যবহার করা হয় এবং এটির সাহায্যে সেই একই ডেটার গড় সাপেক্ষে যেকোনো ডেটার দূরত্ব নির্ধারণ করা হয়। পরিসংখ্যান এবং গাণিতিক বিশ্লেষণের পরিভাষায় এই ব্যবহার খুবই সাধারণ।

পদার্থবিজ্ঞানের ভাষায় তিন ধরনের বিক্ষিপ্তকরণ রয়েছে:

1) কণা একটি নির্দিষ্ট দিকে চলমান,

2) অপটিক্সের পরিভাষায় মহাকাশে আলোর বিচ্ছুরণকে বোঝায় যা আমাদেরকে এক বা অন্য উপায়ে বাস্তবতা পর্যবেক্ষণ করতে দেয় এবং

3) শাব্দ বিচ্ছুরণ, যা দেখায় কিভাবে শব্দ তরঙ্গ বাতাসের মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে।

জীববিজ্ঞানে এটি দুটি অর্থে ব্যবহৃত হয়:

1) বীজের বিস্তারের পরিপ্রেক্ষিতে বিচ্ছুরণ (যা বাতাস বা বৃষ্টির মাধ্যমে বা মৌমাছি দ্বারা পরাগায়নের মাধ্যমে হতে পারে) এবং

2) কোনো প্রাণীর জনসংখ্যার বিচ্ছুরণ।

রসায়নে বিচ্ছুরণ ঘটে যখন কিছু পদার্থ স্থানচ্যুত বা মিশ্রিত হয়।

ছবি: ফোটোলিয়া - হোনজাক্রেজ / সিমন